পাবলিক ভার্সিটিতে সুযোগ না পেয়ে মন খারাপ?

পাবলিক ভার্সিটিতে পড়তে না পারা , কিংবা ভালো জিপিএ না পাওয়া অথবা ভালো সাবজেক্টে ভর্তি হতে না পারা এগুলো আসলে একটা সময় গিয়ে খুব বড় একটা ব্যাপার থাকে না ।

অন্য একটা ক্যাম্পাস থেকে চবিতে মাইগ্রেশন করে আসা একটা জুনিয়র আমাকে বলছে ,এখান থেকে তো ভাই অনেক বিসিএস হয় তাই এখানেই ভর্তি হলাম । পুরা ৩০ সেকেন্ড তাজ্জিব হয়ে তার দিকে তাকিয়ে ছিলাম ।

বিশেষ প্রয়োজনে বাসায় গিয়েছিলাম । ভর্তি পরীক্ষার্থী এক জুনিয়রের সাথে দেখা । কথায় কথায় জানতে পারলাম তার দুইটাতেই গোল্ডেন এ প্লাস আছে । সে বুয়েটের কোচিং করছে এবং বুয়েট ছাড়া কোথাও পড়বে না । জিজ্ঞেস করলাম রুয়েট ,চুয়েটের নাম শুনেছে কিনা । বলল , শুনেছে ,কিন্তু সেখানে এক্সাম দেবে না । বুয়েট কেন ? এখন পর্যন্ত সে দেশের কোন ক্যাম্পাসে চান্স পেয়েছে বলে আমি খবর পাই নি ।

অমুক ক্যাম্পাসে না গেলে জীবন বৃথা ।
দুইটা এ প্লাস না পাইলে ইমেজ থাকে না ।
অমুক ক্যাম্পাসের ট্রেনে না চড়লে জীবনের মানে বুঝা যায় না ।
তমুক ক্যাম্পাসের লাল বাসে না উঠলে ছাত্রজীবন বৃথা ।
আরেক ক্যাম্পাসের বারান্দা দিয়ে না ঘুরলে এই জীবন রেখে লাভ নাই ।

এরকম চিন্তা ভাবনা করা মানুষগুলোই আসল জায়গায় গিয়ে ধরা খায় । একটা কথা জানিয়ে রাখি লাল বাসের ক্যাম্পাসের অনেক ছেলে মেয়েই আছে যারা চাকুরি না পেয়ে অফিসের দরজায় দরজায় ঘুরছে । সাফল্য আর ব্যার্থতা নিজের উপর নির্ভর করে । ক্যাম্পাসের উপর নয় ।

আবার এমন মানুষও পাবেন যে লাল বাস জীবনেও দেখে নাই । শুধু নাম শুনেছে । কিন্তু এখন যে পজিশনে আছে সেটা বললে ভয় পেয়ে যাবেন । এইটা হইলো হার্ড ওয়ার্ক । এইটা হইলো লাল বাসের ক্যাম্পাস কে ওভারটেক করে যাওয়ার মতো হার্ড ওয়ার্ক ।

শাটলের ক্যাম্পাসের অনেক ছেলে মেয়েই আছে যারা শাটল সঙ্গীত গাইতে গাইতে জীবন শেষ করে দিয়েছে । এখন আর গান নাই । গুনও নাই । যা আছে সেটা শুন্য শ্মশান ।

প্যারিস রোডের অনেক ছেলে মেয়েই শুধু যোগ্যতাটুকু বিকাশ করতে পারে নাই বলে ব্যার্থ হয়েছে । তাঁদের ক্যাম্পাস ভ্যালু দিয়ে কিছুই করতে পারে নাই ।

অথচ এমন মানুষও আছে যে কিনা লজ্জায় নিজের ক্যাম্পাসের নামই বলতে পারে নাই । কিন্তু ৫ বছর জায়গামতো গিয়ে জ্বলে উঠেছে । হ্যা … এরকম উদাহরন নেহায়েত কম নয় ।

একটা ভালো জিপিএ
একটা ভালো ক্যাম্পাস
এগুলো দরকার আছে । তবে এগুলো অপরিহার্য নয় । হয়তো ৫ টা বছর নাম ভাঙ্গিয়ে চলতে পারবেন । কিন্তু এরপর খোলা মাঠে গোল দিতে হবে নিজের যোগ্যতায় । কেউ এসে হেল্প করবে না ।

জাতীয় ,প্রাইভেট কিংবা পাব্লিক যেখানেই পড়ুন না কেন দিন শেষে আপনার ভেতরে কি আছে সেটাই আসল কথা । অতএব নিজেকে ছোট না ভেবে কাজে নামাটাই আসল কথা । ক্যাম্পাসের গল্প ৫ বছরের । নিজের গল্প আজীবনের

(আরাফাত আবদুল্লাহর ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে সংগৃহীত)

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।