ঈদে মসলার বাজার সহনশীল রয়েছে : ডিএসসিসি মেয়র

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন বলেছেন, ঈদে মসলার বাজার দর সহনশীল পর্যায়ে রয়েছে। গতবারের তুলনায় এবার সে দাম কিছুটা কম রয়েছে। তবে, মসলার বাজার যাতে অসহনীয় পর্যায়ে না যায় সেজন্য বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৬ আগষ্ট) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে রাজধানীর কারওয়ানবাজার এলাকায় কাঁচাবাজারে মসলার পাইকারী দোকান পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

তিনি বলেন, আজকে (বৃহস্পতিবার) পাইকারীর বাজার যাচাইবাছাই করলাম। আমরা এ যাচাইবাছাইয়ের মধ্য দিয়ে নিঃসন্দেহে এটা বলতে পারি, বিভিন্ন মসলা যেমন, পেঁয়াজ, রসুন থেকে শুরু করে অন্যান্য দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এমনকি আমাদের জনগনকে এ বিষয়ে আশ্বস্ত করতে চাই, বেশির ভাগ মসলার দর গতবছরের তুলনায় এ বছর কিছুটি হলেও কম রয়েছে। বিশেষ করে পেঁয়াজ, রসুনসহ অন্যান্য মসলার দাম গত বছরের তুলনায় এ বছর খানিকটা সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে।

মেয়র বলেন,‘ ডিএনসিসি এবং ডিএসসিসি এলাকায় ঈদকে সামনে রেখে মাসলার বাজার যাতে অস্থিতিশীল না হয়ে উঠতে পারে সেজন্য আমরা উদ্যোগ নিতে যাচ্ছি এবং আমাদের প্রতিটি অঞ্চলে মনিটরিং থাকবে। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে যেসব এলাকায় কাঁচাবাজার রয়েছে সেসব কাঁচাবাজারগুলোতে আমাদের মনিটরিং ব্যবস্থা থাকবে। যাতে মসলার বাজার নাগালের বাইরে না যায়।’

তিনি আরও বলেন, আমরা দেখেছি আদার দাম গতবছরের মত এ বছরও একই দাম আছে। আমরা এগুলোর তালিকা তৈরি করেছি। এ তালিকা সমস্ত খুচরা বাজার রয়েছে সেগুলোতে টাঙিয়ে দিব। মসলার দাম যে পরিমাণ সহনীয় পর্যায়ে আছে সেটা ঈদ পর্যন্ত এবং ঈদের পরেও রাখতে আমরা কার্যকর ব্যবস্থা নেব। ঢাকা উত্তর এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশেনের উদ্যোগে আমাদের এ কার্যক্রম চলমান থাকবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যতটুকু পর্যালোচনা করেছি তাতে মসলার যথেষ্ট সরবরাহ রয়েছে। ঈদে মসলার দাম বাড়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই।

আরেক এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কোরাবানীর হাটের প্রস্তুতি চলছে। আমরা বিভিন্ন সূত্র থেকে নিশ্চিত হতে পেরেছি এবার প্রচুর পরিমান পশু রয়েছে। বিশেষ করে দেশী বিদেশী ছাগলের সরবরাহ রয়েছে। এতে করে পশুর দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে। যেমনটা গতবার ছিল। এবার কোনো রকম সংকট আমরা দেখছি না। যথেষ্ট পরিমান সরবরাহ রয়েছে কোরবানীর পশুর।

ঈদ কেন্দ্রীক বাজারে চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রের বিষয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, বাজার কেন্দ্রীক চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রনের বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্ব। আমরা আশা করছি এটা নিয়ন্ত্রন রাখতে তারা সক্ষম হবেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।