পলিথিনের ব্যবহার বন্ধ করতে যুদ্ধ ঘোষণা করতে হবে

পরিবেশ দূষণকারী পলিথিনের ব্যবহার বন্ধ করতে যুদ্ধ ঘোষণা করতে হবে। না হলে আগামীতে পরিবেশের উপর যে বিপর্যয় নেমে আসবে তাতে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

শনিবার (২১ জুলাই) বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে আগারগাঁওয়ের বন ভবনে ‘পরিবেশ দূষণ: পলিথিন-প্লাস্টিক বর্জ্য ও অন্যান্য প্রসঙ্গ’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তারা এ আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) যুগ্ম সম্পাদক মিহির বিশ্বাস।

সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক খন্দকার বজলুল হক বলেন, ‘পরিবেশের ভয়াবহ বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে হলে সাধারণ মানুষের সচেতনতার পাশাপাশি সরকারকে সচেতন হতে হবে। বুড়িগঙ্গা ও সুন্দরবনকে রক্ষা করার জন্য জনসচেতনতা যতটুকু দরকার তার থেকে অনেক বেশি দরকার সরকারের সচেতনতা।’ এটা রাজনৈতিক সদিচ্ছার বিষয় বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, ‘পরিবেশ রক্ষায় আইন প্রয়োগকারী সংস্থা যেমন দায়িত্ব পালন করবেন আবার সাধারণ মানুষেরও কিছু দায়িত্ব রয়েছে। সঠিকভাবে আইনের যথাযথ প্রয়োগের মাধ্যমে এ সমস্যা সমাধান করা সম্ভব হবে। আমাদের শক্তিশালী আইন আছে কিন্তু সে আইনের প্রয়োগ যথাযথ হচ্ছে না। আইন অমান্যকারীরা ছাড় পেয়ে যাচ্ছেন। যে কারণে অনেক সমস্যা আমরা দূর করতে পারছি না।’

পলিথিনের উৎপাদনের জায়গাটা সরকার বন্ধ করতে পারলে এক্ষেত্রে অনেকটা কাজে দিতো উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘পলিথিন যদি বাজারে না থাকে এবং মানুষের হাতে যদি না আসে তাহলে ব্যবহার এমনিতেই কমে যাবে।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।