মাদকের বিরুদ্ধে আমরা সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নিয়েছি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মাদকবিরোধী অভিযানে অপরাধীদের ধরার কারণে দেশের কারাগারের ধারণ ক্ষমতা ৩৫ হাজারের চেয়ে বর্তমানে ৮০ হাজারের বেশি আসামি কারাগারে রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

আজ বুধবার বিকেলে দশম জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকার দলীয় সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য উম্মে রাজিয়া কাজলের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাদক এমনই এক সর্বনাশা নেশা যাতে আমাদের যুব সমাজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। আমাদের প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতির ঘোষণা দিয়েছিলেন। সেই নির্দেশনাকে ঘিরেই আমাদের সর্বাত্মক কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। মাদকের বিরুদ্ধে আমরা সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নিয়েছি।

যৌথ তালিকার ভিত্তিতেই জড়িতদের গ্রেফতার করা হচ্ছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের কারাগারের ধারণ ক্ষমতা ৩৫ হাজার, এ মুহূর্তে আসামি রয়েছে ৮০ হাজারের অধিক। এ কারাবন্দিদের ৪৩ শতাংশই মাদক ব্যবসায় জড়িত কিংবা মাদক অপরাধে অপরাধী। অভিযান শুরুর পর এ ফিগারটা প্রতিদিনই বাড়ছে। অবৈধ ব্যবসা ও অপরাধী ধরতে গিয়ে কোনো কোনো জায়গায় আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী বাধার সন্মুখীন হয়। মাদক ব্যবসায়ীরা নিরাপত্তা বাহিনীকে আক্রমণ করে বসে। সেগুলো প্রতিহত করছি।

চলমান মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হওয়ার কারণে প্রধানমন্ত্রীর জন্য গ্রামগঞ্জে দুহাত তুলে ধরে মোনাজাত করা হচ্ছে বলে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আমি গ্রামেগঞ্জে যাচ্ছি। গ্রামের প্রত্যেক জায়গাতে সবাই দুই হাত তুলে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করছেন। তারা বলছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন সেটা যেন অব্যাহত থাকে। এ অভিযান যেন বন্ধ না হয়।

সরকারি দলের সদস্য সাবিনা আক্তার তুহিনের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে একটি করে ৫০ শয্যার মাদকাসক্ত নিরাময় হাসপাতাল স্থাপন করা হবে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ এবং মাদকাসক্তদের সুস্থ করে সমাজের মূল ধারায় ফিরিয়ে আনতে সরকার ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এ লক্ষ্যে রাজধানীর তেজগাঁয়ের ৫০ শয্যার মাদকসক্ত নিরাময় কেন্দ্রকে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করা হচ্ছে।

সরকারি দলের অপর সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ-এর তারকা চিহ্নিত এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ২০০৯ সাল থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ৩ লাখ ৫৩ হাজার ৯০৬টি অভিযান পরিচালনা করে ১ লাখ ৭ হাজার ৭৮৭ জন মাদক অপরাধীর বিরুদ্ধে ১ লাখ ১২১টি মামলা দায়ের করেছে। এই সময়ে ৯৪ লাখ ২৫ হাজার ৫৯৯ পিস ইয়াবা, ১৩১ দশমিক ৯১৪ কেজি হেরোইন, ৯ দশমিক ৪০৪ কেজি কোকেন, ২ দশমিক ৫৩০ কেজি আফিম, ৩৫ হাজার ৭৫০ দশমিক ৩৮৯ কেজি গাঁজা, ৩ লাখ ৭৪ হাজার ৭৭ বোতল ফেনসিডিল, ১ লাখ ৪২ হাজার ৯৯৩ অ্যাম্পুল ইনজেকশন ড্রাগ, ৫২ হাজার ৫৬২ বোতল বিদেশি মদ এবং ১ লাখ ১৯ হাজার ৫১৬ ক্যান ও ৮০৬ বোতল বিয়ার উদ্ধার করেছে।

এ ছাড়াও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর দায়েরকৃত মামলার মধ্যে চলতি বছরের মে পর্যন্ত ৫০ হাজার ৭০৫টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।