বাংলাদেশের নির্বাচনে ভারত কী করবে? বিএনপিকে কাদের

বিএনপির প্রতিনিধি দল ভারত সফরে গিয়ে দেশের কোন স্বার্থ নিয়ে কথা বলেছে, তা জানতে চেয়েছেন ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, তারা গেলে নির্বাচনকে সামনে রেখে। কিন্তু বাংলাদেশের ভোটে বিদেশি শক্তির হস্তক্ষেপের কোনো সুযোগ নেই।

বুধবার (১৩জুন) রাজধানীর গাবতলীতে ঈদযাত্রার প্রস্তুতি পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

কাদের বলেন, ‘এখানে বিদেশি শক্তি কোনো সুযোগ নেই যে, তারা নির্বাচনের ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করবে। আমার জানা মতে, ভারতে এখানে হস্তক্ষেপ করবে না।’

ভারতের যদি বাংলাদেশে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় দেখতে চায়, তাহলে ২০০১ সালে কেন পরাজয় হয়েছে-সেটাও জানতে চান কাদের। বলেন, ‘৭৫ সালের পর ২১ বছর আমরা কেন ক্ষমতায় নাই?’

‘আমাদের দেশের নির্বাচন আমাদের। দেশের জনগণের যে রায় সেখানে ভারত কী করে আমাদের দেশের জনগণকে প্রভাবিত করবে? বলবে যে, ওই লোককে ভোট দিন?’।

সম্প্রতি বিএনপির তিন নেতা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আবদুল আউয়াল মিণ্টু ও হুমায়ুন কবির ভারতের বিভিন্ন দল ও থিংক ট্যাংকের সঙ্গে বৈঠক করে এসেছেন।

সাধারণত রাজনৈতিক সফরে কারও বিদেশ গেলে আগেই গণমাধ্যমকে জানানো হয়। কিন্তু এই সফরের বিষয়ে বিএনপি নেতারা আগে থেকে কিছু জানাননি। ভারতের প্রভাবশালী ইংরেজি দৈনিক দ্য হিন্দু প্রথমে এই খবর প্রকাশ করে এবং পরে বাংলাদেশের কয়েকটি গণমাধ্যম এই সফর নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করে। যদিও বিএনপির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কিছু জানানো হয়নি এখনও।

দ্য হিন্দুর প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী বিএনপি ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক উষ্ণ করতে চায়। রাজনীতিতে প্রকাশ্য ভারতবিরোধী অবস্থান পাল্টে ফেলতে চায় তারা। বিএনপির শাসনামলে বাংলাদেশে ভারতীয় বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীর আর জঙ্গিবাদী গোষ্ঠীর আস্তানা তৈরির বিষয়টিকে ভারতীয়দের কাছে ৮০ আর ৯০ দশকের ভুল রাজনীতি হিসেবে উল্লেখ করেছেন দলটির একজন নেতা। তিনি জানিয়েছেন, তারেক রহমানের পক্ষ থেকে নতুন সম্পর্কের বার্তা নিয়ে গিয়েছেন তারা।

বিএনপি নেতারা প্রকাশ্যেই যা বলে থাকেন, তাতে তাদের এই বিশ্বাস স্পষ্ট যে, বাংলাদেশের রাষ্ট্রক্ষমতায় কে আসবে, এ বিষয়ে ভারতের পছন্দ-অপছন্দের গুরুত্ব আছে।

কাদের বলছেন, বিএনপি তার স্বভাবসুলভ নালিশ করতে ভারত গিয়েছিল। বলেন, ‘বিএনপির এখন নালিশ ছাড়া আর কিছু করা নাই। দেশে বসেও নালিশ, বিদেশেও নালিশ। নালিশ আর নালিশ।’

 

‘নালিশ করে রেজাল্ট কী হবে সবাই জানে-এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘জনগণের উপর আস্থা রাখার জন্য বিএনপিকেও অনুরোধ করব। কথায় কথায় বিদেশিদের কাছে দেশের ব্যাপার নিয়ে নালিশ করা দেশের জন্য শুভ না। এটা কোনো দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দলের পরিচয় না।’

অন্য এক প্রশ্নে কাদের বলেন, ‘আমরা তো ক্ষমতার জন্য ভারতে যাইনি। আমরা গিয়েছি আলোচনার জন্য। আমরা কথা বলেছি তিস্তা নিয়ে, আমরা কথা বলেছি রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে। আমাদের যে সমস্যা ভারতে সাথে, জাতীয় স্বার্থ নিয়ে কথা বলেছি।’

‘বিএনপি জাতীয় স্বার্থ নিয়ে কি একটা কথাও বলেছে? একটা পত্রিকায় নিউজ আছে? কোনো মিডিয়ায় খবর আছে?- এমন প্রশ্ন রেখে ক্ষমতাসীন দলের নেতা বলেন, ‘তারা গিয়েছে নির্বাচনে ভারতের সাহায্য নিতে।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।