ফতোয়ার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, ইরান যাচ্ছেন না ভারতীয় নারী গ্র্যান্ডমাস্টার

পোশাকে ফতোয়া! প্রতিবাদে ইরানে এশিয়ান নেশনস কাপ চেস চ্যাম্পিয়নশিপে গেলেন না মহিলা গ্র্যান্ডমাস্টার সৌমা স্বামীনাথন।

ইরানের হামাদানে ২৬ জুলাই থেকে ৪ অগস্ট পর্যন্ত হতে চলা এই প্রতিযোগিতায় প্রত্যেক দাবাড়ুকে বাধ্যতামূলক ভাবে মাথায় স্কার্ফ পরতে বলা হয়েছিল। জুনিয়র পর্যায়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন  হওয়া সৌম্য এরই প্রতিবাদে প্রতিযোগিতায় অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

ফেসবুক পাতায় তিনি লিখেছেন, “ইরানের বাধ্যতামূলক ভাবে মাথায় স্কার্ফ পরার নিয়ম আমার মতে মানবাধিকারের বিরোধী। এটা নিজেকে প্রকাশের স্বাধীনতা, ভাবনা-চিন্তার স্বাধীনতা, বিবেক ও ধর্মের বিরোধী। এই পরিস্থিতিতে ইরানে না যাওয়াই আমার কাছে প্রতিবাদের রাস্তা।”

ক্রীড়াবিদদের ক্ষেত্রে পোশাকে এই জাতীয় ফতোয়ার কোনও জায়গা নেই বলে মনে করেন সৌমা। তাঁর মতে, “আয়োজকরা যদি আমাদের জাতীয় পোশাক পরতে বলেন, তা তবু মানা যায়। কিন্তু, খেলাধূলার জগতে জোর করে ধর্মীয় পোশাক-বিধি চাপানো যায় না। দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, আসন্ন এশিয়ান নেশনস কাপ চেজ চ্যাম্পিয়নশিপের ভারতীয় মহিলা দল থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছি। জোর করে স্কার্ফ বা বোরখা পরতে পারব না। এত বড় প্রতিযোগিতায় খেলোয়াড়দের সুযোগ-সুবিধার দিকে লক্ষ্য রাখা না হওয়ায় আমি খুবই হতাশ। যদিও দেশের প্রতিনিধিত্ব করা আমার কাছে বিশাল সম্মানের। আমরা, ক্রীড়াবিদরা অনেক স্বার্থত্যাগ করেই থাকি। সবসময় খেলাকে অগ্রাধিকার দিই। কিন্তু, কিছু ব্যাপারে সমঝোতা করা যায় না।”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।