মাশরাফির এখুনি রাজনীতিতে আসা কতটা সঠিক হবে?

মাশরাফির হয়তো এত কষ্ট করতে হবে না। কারণ ইমরানের মত মাশরাফি নিশ্চয় নতুন দল বানাবেন না। বরং যে দলের মন্ত্রীর মুখ থেকে ঘোষণা এসেছে সে দলের হয়ে নির্বাচন করলে জিতে যাবেন আশা করা যায়। অন্যদিকে আমাদের জাতীয় দলের অধিনায়ক মাশরাফির রয়েছে একটি স্বচ্ছ ইমেজ। রাজনৈতিক হাতেখড়ি না হলেও সামাজিক জনপ্রিয়তায় মাশরাফির অবস্থান অনেক উপরে। ব্যক্তিজীবনেও যথেষ্ট ভাল মানুষ হিসেবে মাশরাফিকে সবাই জানেন। তাই হয়তো মাশরাফি ইমরান খানের চেয়েও ভালো করবে। বর্তমান রাজনীতিতে যখন খারাপ মানুষের অধিক আনাগোনা, সেই মুহুর্তে রাজনীতিতে মাশরাফির মত স্বচ্ছ ইমেজের লোকের পদার্পন করাটা জরুরি বলেই মনে করি।

কিন্তু তার সাথে একটি প্রশ্ন এসেই যায়। মাশরাফি তো এখনো বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সম্পদ। দলকে এখনো অনেক কিছু দেয়ার আছে তার। এই মুহুর্তে রাজনীতির মাঠে আসা কতখানি সঠিক হবে তার জন্য?

একজন রানিং খেলোয়ারের মাথায় রাজনীতির মত এমন কুটিল ও জটিল বিষয় ঢুকিয়ে দিলে তা তার ক্যারিয়ার ধ্বংসের সহায়ক হবে বলে মনে করি। মাশরাফির মত মানুষ রাজনীতিতে আসুক এটা আমি মনেপ্রাণে চাই। তার জন্য রইলো অনেক শুভকামনা। তবে সেটা যেন হয় জাতীয় দলে তার দায়িত্ব পালন শেষ হওয়ার পর। কারণ অধিনায়ক হিসেবে, সর্বোপরি একজন অভিজ্ঞ খেলোয়ার হিসেবে জাতীয় দলকে এখনো অনেক কিছু দেয়ার আছে তার। 

লেখক : ইলিয়াস মাহমুদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।