পাইলট নারী হওয়াটা অপরাধ এবং আমাদের ইন্টারনেট

আমাদের দেশের মানুষকে শিখতে হবে,শিখাতে হবে!! জানি না,কোন সংস্কৃতির কারণে বার বার বাংলাদেশের মানুষ এমন আচরণ করে। নারী পাইলটের কারণে বিমান ক্রাশ হয়েছে,এমন মন্তব্য দেখতে হয়েছে। মেয়ে মানুষ দিয়ে বিমান চালাইলে এমনই হবে!!!!

সবাই অনেক দক্ষ এভিয়েশন সেক্টরের লোকের মতো মন্তব্য দেওয়া শুরু করল। কিছু জিনিস আপনার চুপ থাকার জন্য,ঐসব ব্যাপারে আপনার মাথা ঘামতে নেই। জানা আছে কি?কত ঘন্টা ফ্লাইং অভিজ্ঞতা থাকার পর একজন পাইলট হয়? টাকা দিয়ে প্রাইভেট এভিয়েশন থেকে কেউ পাইলট হতে পারে না। পাইলট নারী হওয়াটা কি অপরাধ নাকি?নাকি নারী পাইলটরা অপবিত্র থাকে? সেই জন্য তাদের দিয়ে বিমান চালানো যায় না?

খুব অশ্লীল মন্তব্য গুলো পেতে হচ্ছে,আমাদের পৃথুলা রশিদকে। যাকে নিয়ে নেপালের গণমাধ্যমে প্রচার হচ্ছে তার সাহসিকতা ও দক্ষতার কথা,কারণ বিমান ক্রাশ হলে স্বাভাবিক বেঁচে যাওয়ার ঘটনা খুব কম,সেখানে নেপালের ঘটনায় কিছু মানুষ বেঁচে ফিরতে পারল। আর সেই প্রয়াত পৃথুলা রশিদ বাংলাদেশী মানুষের কাছ থেকে পাচ্ছে ঘৃণা। কেনো?কোন সংস্কৃতির কারণে?

বাংলাদেশের শিশু জন্ম নেওয়ার সময় কোন শিক্ষা নিয়ে জন্ম গ্রহণ করে? আমি শুনেছি, আমেরিকান শিশু জন্ম গ্রহণের সময় এমন একটা নীতি নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। যে,তারাই পৃথিবী শাসন করবে। ভারত অনেক জাতপাতের দেশ হয়েও সেখানে মানুষ সবাই ‘জয় হিন্দ’ বলে। এটা তাদের জন্মগত শিক্ষা।তারা দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে না। বাংলাদেশের মানুষ এই রকম কোন শিক্ষা নিয়ে জন্মগ্রহণ করে কিনা? জানি না,করে কিনা? তবে এটা জানি,আমরা এমন একটা জাতি।যারা জুকারবাগের লাইভে গিয়ে চিকন পিনের চার্জার খুঁজি!!!!

ইন্টারনেট আমাদের হাত থেকে সরিয়ে নিতে হবে নয়তো আমাদের ইন্টারনেট ব্যবহার শিক্ষা দিতে হবে। কেনো বিমান চালালো,আজ তাকে অপমান করা হচ্ছে এই ইন্টারনেট দিয়ে। দেশে প্রেমের টানে, বঙ্গবন্ধুর টানে মিছিলে গিয়ে ছেঁড়া কাপড়ে ঘরে ফিরে আসতে হয়েছে। সেই মেয়েটা আরো বেশি অপমানিত হয়েছে ইন্টারনেটে!কাপড় তো একবার ছেঁড়া হয়েছে,ইন্টারনেটে বার বার ছেঁড়া হয়েছে। বাংলাদেশের মানুষকে শিখতে হবে শিখাতে হবে,আজও আমরা অশিক্ষিত।

মিজানুর রহমান নোবেল

শিক্ষার্থী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।