সব কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকেই দেখতে হবে?

টায়ারের জুতায় ২০ বছর কাটিয়েছেন সাংসদ ইউসুফ- লিখেছেন অগ্রজ শফি আহমেদ। আমি একালের নেতা এমপিদের অনেকের পায়েই প্রাডা বা লুইস বুটন দেখি। বিমানের বিজনেস ক্লাসের সেলফি দেখি- আপনি কি দেখেন?

অঞ্জন রায়ের ফেসবুক ওয়াল থেকে।

 

সম্মানিত সাংসদ ইউসুফদের কি তারা চেনেন? না কি আপনি বা আপনারা যারা রাজনীতিতে সংখ্যালঘু তারা এসব লিখে বিবেকের ক্ষতে প্রলেপ দিতে চান?

প্রধানমন্ত্রী ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি আশরাফুল আলম খোকন সাংসদ ইউসুফের অসুস্থতার কথা বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরে আনলে তিনি এই প্রবীণ রাজনীতিবিদের চিকিৎসার দায়িত্ব নেন।

তাঁর নির্দেশে প্রশাসন রোববার সকালেই সাংসদ ইউসুফকে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করে। মেডিকেল বোর্ড গঠিন হয়। চট্টগ্রামের ধনী এমপি নেতারা এতদিন কোথায় ছিলেন? সব কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকেই দেখতে হবে?

এই প্রশ্নে অনেকে বিরক্ত হবেন জানি- তবু বলছি, এই বিষয়গুলো সামনে আসতেই হবে। তাহলেই অনেকের চেহারা- তাদের চরিত্র স্পষ্ট হয়ে উঠবে। যা হওয়া জরুরী।

One thought on “সব কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকেই দেখতে হবে?

  • জানুয়ারী 23, 2018 at 9:25 অপরাহ্ন
    Permalink

    জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রক্ত দিয়ে কেনা বাংলাদেশ। রাজনীতি ডিজিটাল হয়েছে এখন আর জনগনের সেবা করার দরকার হয় না টাকা দিয়ে কেনা যায় রাজনীতি অথবা বাবা,দাদা,কাকা বা কোন আত্মীয় স্বজন রাজনীতি সাথে জরিত থাকলেই হতে পারবেন বিশাল বড় রাজনৈতিক নেতা।বাংলাদেশের ইতিহাসে এক সময় যত বড় বড় রাজনৈতিক ব্যাক্তি তৈরি হয়েছে তাদের কিন্তু টাকার প্রয়োজন হয় নি? বর্তমানে রাজনীতি মানেই টাকা কেন??????? নেতা হতে ব্যাস্ত সবাই কেউ সেবক হিসেবে কাজ করতে চায় না। বর্তমানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন, সফলতা ,আদর্শ আর নেত্বত্ত বিশ্বের কাছে আজ বিজয়ী ,গর্বিত বাংলাদেশ গর্বিত সাধারণ জনগন। বাংলাদেশের অর্জন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন তাহলে নিজেদের মধ্যে কেন এই সহিংসতা তবে কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মান নষ্ট করার ঘৃন একটা ষড়যন্ত্র। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আজ সুসময় কিন্তু যখন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দুঃসময় ছিল তখন কোথায় ছিল এই সচেতন নাগরিকের লোকজন কোথায় ছিল জনগনের সেবক হিসেবে সচেতন করার ভদ্রলোকেরা । জাতির জনক বঙ্গ বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লাস যখন সাধারণ জনগনেকে দেখতে দেওয়া হয় নাই তখন কোথায় ছিল এই নাগরিক ঐক্য,আর কোথায় ছিল জনগনকে সচেতন করার মত সাহসী সৈনিকদের খুঁজে পাওয়া সম্ভব ছিল না। আজ শামীম ওসমানের মত লোকদের নিয়ে সমালোচনা করা হয় এই দুঃখ কোন এলাকা ভিত্তিক নয় এই দুঃখ সমগ্র বাংলাদেশের সাধারণ জনগনের। আরে যখন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় ছিল না কেউ নৌকা মার্কা তো দৃরের কথা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম উচ্চারণ করার সাহস করত না ঠিক তখনই এই শামীম ওসমানের মত সন্ত্রাসীরা বুক ফুলিয়ে জাতির জনক আর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকার মাঝি হিসেবে জীবন দিতে তৈরি ছিল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আবেদন শামীম ওসমান আপনার জন্য জীবন বিসর্জন দিতে এক মিনিট সময় লাগবে না তিনি সত্যবাদী সাহসী আর অন্যায় কাছে মাথানত করে না এটাই যদি তার অপরাধ তাহলে হারিয়ে যাবে সততা আদর্শ ত্যাগী তরুন প্রজন্মের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতিয়ার। হে বাংলার মা আপনি তো সবই জানের এই শামীম ওসমানের রক্ত যদি দেহ থেকে আলাদা করা হয় তার রক্ত লেখা থাকবে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তা প্রতিটি রক্ত কনিকা জেগে বলবে আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সৈনিক। মা বাংলাদেশের সাধারণ জনগন যানে আপনি দলের অনেক কঠিন সময় শক্ত হাতে মোকাবেলা করতে পারেন কিন্তু জনগন আপনার একনিষ্ঠ সৈনিকদের দল থেকে হারাতে চায় না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার দেশগড়ার হাতিয়ার হিসেবে কাজ করতে হবে ক্ষমতার লোভ বা টাকার পাহাড় গড়তে শামীম ওসমানের মত লোক রাজনীতি করে না ।জনগনের কাছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার বার্তা পৌছে জনগনের প্রত্যাশা পৃরনে সর্বক্ষেত্রে সাহসীকতা পরিচয় রাখতে প্রস্তুত সবসময়। হাতে যদি লাঠি থাকে তখন সবাই লাঠি দিয়ে মারতে পারে কিন্তু লাঠি ছারা যুদ্ধ করতে পারে তারাই যারা মন থেকে তার প্রিয় ব্যাক্তি কে ভালবাসেন আর তারাই হল শামীম ওসমান,প্রয়াত জয়নাল হাজারী, মহিউদ্দিন খান আলমগীর, এবং তরুদের অহংকার সাভারের মঞ্জুরুল আলম রাজীব এবং ফখরুল আলম সমর অসময়ের নৌকার মাঝি হিসেবে কাজ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাত কে শক্তিশালী করতে নিজেদের জীবনের মায়া তো দূরে থাক তাদের সবকিছু উজার করে দিতে প্রস্তুত সব সময়। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ আজ জনপ্রিয় ক্ষমতাধর দল কিন্তু কেন এত দলীয় কোন্দল কেন এত অহংকার ।হতবাক সাধারণ জনগন তাহলে কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন সফলতার হিংসা বিদ্বেষ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আর্জনের জন্য জীবন বাজী রাখতে প্রস্তুত সাধারণ জনগন যে কোন অপশক্তি প্রতিহত করতে তৈরি সবসময় সর্বশেষ একটাই কথা ।
    মীরজাফর হতে সাবধান।
    ????????????????????
    বিষ্ণু পদ সাহা

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।